LOGo  


২৪ ঘন্টা আপনার পাশে, আপনার সাথে ডেইলি নারায়ণগঞ্জ ২৪ ডটকম

dailynarayanganj24@gmail.com

 

 

শামীম ওসমানের সম্পদ বেড়েছে কয়েক গুণ

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকমঃ শামীম ওসমানের সম্পদ বেড়েছে কয়েক

গুণ। শামীম ওসমানের একটি গাড়ি থাকলেও তাঁর স্ত্রীর একটিও নেই। তিনি নিজে টয়োটা ল্যান্ডক্রজার ভি-৮ গাড়ি ব্যবহার করেন। যার মূল্য ৫৬ লাখ ৯৩ হাজার ১৬৬ টাকা। শামীম ওসমান ৩৮ তোলা স্বর্ণ ব্যবহার করেন যার মূল্য অজানা। তাঁর স্ত্রীর ৪০ তোলা স্বর্ণ রয়েছে। তাঁদের বিবাহকালে পাওয়া এসব স্বর্ণের মূল্য অনির্ধারিত।

শামীম ওসমানের বিরুদ্ধে অতীতে প্রায় ১৭ টি ফৌজদারী মামলা দায়ের করা হয়েছিলো। যেগুলোর কয়েকটি উচ্চ আদালতের নির্দেশে কার্যক্রম স্থগিত রয়েছে। কয়েকটিতে খালাস, রাষ্ট্রের আবেদনে প্রত্যাহার কিংবা অভিযোগের দায় হতে অব্যাহতি পেয়েছেন।
একাদশ সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে জমা দেয়া শামীম ওসমানের হলফনামা পর্যালোচনা করে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। নির্বাচন কমিশনে জমা দেয়া হলফনামায় শামীম ওসমান নিজেকে বিএ;এল এল বি ডিগ্রিধারী বলে উল্লেখ করেন।

হলফনামার তথ্য অনুযায়ী, শামীম ওসমান জ্বালানী তৈল আমদানী, পরিবহন ও সরবরাহ সংক্রান্ত প্রতিষ্ঠান মেসার্স জেড এন কর্পোরেশন, শিপিং (পণ্য ও জ্বালানী পরিবহন) প্রতিষ্ঠান জেড এন শিপিং লাইনস লিঃ, যাত্রী পরিবহন প্রতিষ্ঠান শীতল এসি ট্রান্সপোর্ট লিঃ এবং শিপিং (জ্বালানী পরিবহন) প্রতিষ্ঠান মাইশা এন্টারপ্রাইজ লিঃ এর ব্যবসা করেন।

শামীম ওসমানে আয়ের উৎস: বাড়ি/ এপার্টমেন্ট/ দোকান বা অন্যান্য ভাড়া থেকে শামীম ওসমানের বাৎসরিক আয় ৪ লাখ ৪৭ হাজার ৬৬৪ টাকা, ব্যবসা থেকে আয় ২২ লাখ ৪৫ হাজার টাকা, এখাতে তার স্ত্রী লিপি ওসমানের আয় ২২ লাখ ৪৫ হাজার টাকা, শেয়ার, সঞ্চয়পত্র/ব্যাংক আমানতের সুদ পান ১৩ লাখ ৬৩ হাজার ৬৮১ টাকা এবং তার স্ত্রী পান ১৬ লাখ ৫৫ হাজার ০৩৪ টাকা। জাতীয় সংসদ সদস্য হিসেবে সম্মানী ভাতা ২২ লাখ ৪৭ হাজার ৩২৫ টাকা।  
শামীম ওসমানের নামে অস্থাবর সম্পদ নগদ টাকার পরিমান ১৭ লাখ ৮২ হাজার ৮৪৬ টাকা, তার স্ত্রী লিপি ওসমানের নামে ২৩ লাখ ৯৬ হাজার ৮৯ টাকা, নির্ভরশীলদের নামে ১ কোটি ৩৫ লাখ ৬৯ হাজার ৬৩৫ টাকা।

ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমাকৃত অর্থের মধ্যে আইএফআইসি ব্যাংক ও  সিটি ব্যাংকে মোট অর্থের পরিমাণ ২ কোটি ৬৬ লাখ ৪৯ হাজার ৮৫৮ টাকা, তাঁর স্ত্রীর নামে আইএফআইসি ব্যাংকে ২ লাখ ৮২৬ টাকা।

বন্ড, ঋণপত্র, স্টক একচেঞ্জে তালিকাভুক্ত ও তালিকাভুক্ত নয় এমন কোম্পানীর শেয়ার (পরিমান ও অর্জনাকালীন সময়ের মূল্য) শীতল এসি ট্রাসপোর্ট লিঃ এর ১০০টাকার ৩৪ হাজার শেয়ারের মূল্য ৩৪ লাখ টাকা, উইজডম নিটিং মিলস লিঃ এর ২৫টাকা মূল্যের ১০০০টি শেয়ারের মূল্য ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা, জেডএন শিপিং লাইনস লিঃ ১০০০ টাকা মূল্যে ১০ হাজার শেয়ারে মূল্য ১ কোটি টাকা, মাইশা এন্টার প্রাইজের ১০০ টাকা মূল্যের ৭১,২৫০টি শেয়ারের মূল্য ৭১ লাখ ২৫ হাজার টাকা, জেড এন কর্পোরেশনের টাকার অংশীদার ৩০ লাখ ৭৮ হাজার টাকা। তাঁর স্ত্রী লিপি ওসমানের শীতল এসি ট্রান্সপোর্টে ১৯ লাখ ৬৬ হাজার টাকা মূল্যের শেয়ার, রোড এন শিপিং লাইনস লিঃ এর ৪২ লাখ টাকা মূল্যের শেয়ার এবং জেড এন কর্পোরেশনে ৩০ লাখ ৭৮ হাজার টাকা মূল্যের শেয়ার রয়েছে। নির্ভরশীলদের নামে জেড এন শিপিং লাইনস লিঃ এর ৮ লাখ ১০ হাজার টাকা শেয়ার রয়েছে।

পোষ্টাল সেভিংস সার্টিফিকেট বিভিন্ন সঞ্চয়পত্রে বা স্থায়ী আমানতে বিনিয়োগে নিজ নামে শামীম ওসমানের এফডিআর আইএফআইসি ব্যাংক ও সিটি ব্যাংকে ২ কোটি ৩৮ লাখ ৪৭ হাজার ০৬৪ টাকার এফডিআর, স্ত্রীর নামে  আইএফআইসি ব্যাংকের ৪টি একাউন্টে ২ কোটি ৯২ লাখ ১৯ হাজার ৮২৮ টাকা রয়েছে।
শামীম ওসামানের বাসায় ফ্যান, ফ্রিজ, টিভি, টেলিফোন,এসি, আয়রন এবং দৈনন্দিন ব্যবহার্য সামগ্রীর মূল্য ৫ লাখ টাকা, স্ত্রীর নামে দৈনন্দিন ব্যবহায় সামগ্রীর মূল্য  দেড় লাখ টাকা, বাসায় কম্পিউটার সামগ্রীর মূল্য রয়েছে মাত্র ৫০ হাজার টাকা।

শামীম ওসমানের বাসায় খাট, চেয়ার, টেবিল, সোফা, ডাইনিং টেবিল গৃহস্থলী আসবাব পত্র রয়েছে যার আনুমানিক মূল্য ৫ লাখ টাকা, তাঁর স্ত্রীর নামে গৃহস্থলী আসবাব পত্রের মূল্য দেখানো হয়েছে ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা।

শামীম ওসমাননের দায়দেনা ১ কোটি ৫০ লাখ ৮৩ হাজার ৩৫০টাকা। এসব দায়দেনার মধ্যে বিদেশে কর্মরত বন্ধু অনুপ সাহার কাছ থেকে সুদ বিহীন ঋণ গ্রহণ করেছেন ২৬ লাখ ৬৯ হাজার ৯৫০ টাকা, আয়কর বিবরণী অনুযায়ী ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে প্রদর্শিত ঋণ ৫২ লাখ ৮৮ হাজার ৪০০ টাকা এবং জেড এন শিপিং করপোরেশন থেকে ঋণ নিয়েছেন ৭১ লাখ ২৫ হাজার ৪০০ টাকা।

এছাড়া শামীম ওসমান আইআইসি ব্যাংক লিঃ নারায়ণগঞ্জ শাখা থেকে জেড এন শিপিং লিঃ থেকে ৮ কোটি ৮২ লাখ ২৩ হাজার ৮৩৪ টাকা, শীতল এসি ট্রান্সপোর্ট লিঃ থেকে ৩ কোটি ৩৫ লাখ ৬৩৩ টাকা ফান্ডেড লোন এবং মাইশা এন্টার প্রাইজ লিঃ থেকে ২০ লাখ টাকা নন-ফান্ডেড লোন করেছেন।
আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ সংসদ নির্বাচনের ভোট। প্রার্থিতা প্রত্যাহার ৯ ডিসেম্বর আর প্রতীক বরাদ্দ ১০ ডিসেম্বর।

সংবাদ শিরোনাম